উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উনের গুরুতর অসুস্থতার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে নানা গুজব শোনা যাচ্ছে। প্রতিবেশী দেশ দক্ষিণ কোরিয়ার সরকারি সূত্র ও আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প খবরটির সত্যতা উড়িয়ে দেন।

তবে চীনের একটি বিশেষজ্ঞ দল কিমকে স্বাস্থ্য পরামর্শ দিতে উত্তর কোরিয়ায় যাওয়ায় নতুন করে গুঞ্জন ওঠে। বেইজিং ভিত্তিক হংকং টিভির দাবি, মারা গেছেন দেশটির স্বৈরশাসক।

উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উনের মৃত্যুর খবর নিয়ে দুনিয়াজুড়ে জল্পনা শুরু হওয়ার মাঝেই একটি স্যাটেলাইট ছবিকে ঘিরে শুরু হয়েছে চা’ঞ্চল্য।

সেই ছবিতে দেখা গিয়েছে একটি ট্রেন পার্ক করা রয়েছে কিমের ব্যক্তিগত রিসর্টের সামনে। ট্রেনটি ২১ এপ্রিলের কিছু আগেই ওয়ানসানে নিয়ে আসা হয়েছে।

২৩ এপ্রিলও ওই ট্রেনের উপস্থিতি দেখা গিয়েছে ‘লিডারশিপ স্টেশন’-এ। তবে ট্রেনটিকে পরবর্তীতে বের করার সুবিধার জন্য নতুন ভাবে ফের পার্ক করা হয়েছে, এমনই উল্লেখ করা হয়েছে 38 North-এর রিপোর্টে।

38 North-এর রিপোর্টে আরও তুলে ধরা হয়েছে যে, কিমের রিসর্টের সামনে অর্থাৎ ‘লিডারশিপ স্টেশন’-এ যে ট্রেনটি দাঁড়িয়ে রয়েছে সেটি কমপক্ষে ২৫০ মিটার লম্বা।

স্যাটেলাইট চিত্রে যা ধরা পড়ছে, তা থেকে বোঝা যাচ্ছে ‘লিডারশিপ স্টেশন’-এর ছাদে ঢাকা পড়ে যাচ্ছে ওই ট্রেনের অর্ধেক অংশ। পাশাপাশিই রিপোর্টে এ-ও দাবি করা হয়েছে যে, ১৫ এপ্রিল ট্রেনটি কিন্তু সেখানে ছিল না।

কিমের ওই ওয়ানসান কমপ্লেক্সে নয়টি বড়সড় গেস্ট হাউস রয়েছে। মাঠের ঠিক মাঝখানেই রয়েছে বিশালাকার একটি বিল্ডিং, যা ২০১৪ সালে কিম ক্ষমতায় আসার পরেই তড়িঘড়ি নির্মাণ করা হয়েছিল।

এ ছাড়াও বিলাসবহুল এই রিসর্টে রয়েছে একটি সংরক্ষিত বন্দর, শুটিং রেঞ্জ, রিক্রিয়েশন বিল্ডিং এবং রয়েছে একটি ডকও। যা কিমের মেগা ইয়াচের জন্যই মূলত ব্যবহৃত হয়।

ঠিক সামনাসামনি যে রেলওয়ে স্টেশনটি অর্থাৎ লিডারশিপ স্টেশন-এর লাগোয়া একটি রানওয়েও রয়েছে।

ছোটখাটো এয়ারক্রাফ্টগুলি সেখানেই নামে এবং থাকেও এখানেই। তবে গত বছরই এই রানওয়কে ‘হর্স রাইডিং ট্র্যাক’ বানানো হয়। কিমের নতুন শখের অন্যতম একটি হল এখন ঘোড়া চড়ানো।