মাগুরার শালিখা উপজেলায় করোনাভাইরাস নিয়ে মসজিদে তারাবি নামাজের ইমামতি করেছেন এক ইমাম। ঘটনার পরদিন জানা গেছে মসজিদের ওই ইমাম করোনাভাইরাস আক্রান্ত।

শালিখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাগুরার শালিখা উপজেলায় করোনাভাইরাস নিয়ে মসজিদে তারাবি নামাজের ইমামতি করেছেন এক ইমাম। ঘটনার পরদিন জানা গেছে মসজিদের ওই ইমাম করোনাভাইরাস আক্রান্ত। (ইউএনও) মোহাম্মদ তানভীর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।জানা যায়, শনিবার শালিখার আদাডাঙ্গা গ্রামের একটি মসজিদে এই ব্যক্তি তারাবি নামাজে ইমামতি করেন। পরদিন রোববার সকালে তার করোনাভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার খবর আসে।

খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন গণবিজ্ঞপ্তি দিয়ে গ্রামটি লকডাউন করে দিয়েছে। ইউএনও তানভীর রহমান জানান, শনিবার সকালে শালিখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কাশি থাকায় ইমামের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। রোববার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণাগার থেকে তার নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাস ‘পজেটিভ’ ফল আসে।

তিনি বলেন, ইমামসহ ১৩ জন নিয়ে তারাবি শুরু হলেও মসজিদটিতে পরবর্তীতে ২০ থেকে ২৫ জন নামাজ পড়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। যারা নামাজ পড়েছেন তাদেরসহ নমুনা সংগ্রহে সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্যকর্মীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার আওতায় আনার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এ ঘটনার পর শালিখার আদাডাঙ্গা গ্রাম, যশোরের বাঘারপাড়া পশ্চিমা গ্রাম এবং শালিখা-বাঘা সড়ক অবরুদ্ধ করা হয়েছে বলে ইএনও জানান।মাগুরা সিভিল সার্জন অফিসের শিক্ষা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জিল্লুর রহমান বলেন, আদাডাঙ্গা গ্রামসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে ইতিমধ্যে ওই ইমামের নিজ গ্রাম যশোরের বাঘারপাড়ার পশ্চিমা লকডাউন ঘোষণার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এছাড়া উভয় এলাকায় স্বাস্থ্য সতর্কতার জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।